বাংলাদেশ বিষয়াবলি

কালানুক্রমিক ঘটনাবলি

০১.০৩.২০২২

♦ বঙ্গবন্ধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, নওগাঁ এবং ঠাকুরগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় নামে আরো ২টি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন। এ ২টি বিশ্ববিদ্যালয়সহ স্বায়ত্তশাসিত ও সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হবে ৫২টি।

♦ ‘বাংলাদেশের আইলও কনভেনশন ১৩৮’ অনুমোদন।

♦ একযুগে সবজি উৎপাদন বেড়েছে ৭ গুণ। বর্তমানে বাংলাদেশে ১ কোটি ৯৭ লাখ টন সবজি উৎপাদন করছে। সবজি উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে ৩য়।

♦ সুপ্রিম কোর্টের নতুন রেজিস্টার জেনারেল হলেন সিলেট জেলা ও দায়রা জজ মো: বজলুর রহমান।

♦ ২৬ মার্চ থেকে ঢাকা-টরেন্টো ফ্লাইট চালুর উদ্যোগ।

♦ বর্তমানে দেশে জীবন বীমা কোম্পানি মোট ৩৬টি এবং সাধারণ বীমা কোম্পানি মোট ৪৭টি।

♦ দেশে বর্তমানে মোট বীমা গ্রাহক ২ কোটি ৩০ লাখ।

০২.০৩.২০২২

♦ সংশোধিত এডিপিতে ১৭,৭৭৪ কোটি টাকা মূল্য কৃচ্ছসাধন। 

♦ যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস ঢাকায় পৌছেছেন।

♦ বিজিবির মহাপরিচালক হিসেবে যোগদান মেজর জেনারেল সাকিল আহমেদের।

০৩.০৩.২০২২

♦ ইউক্রেনে গোলার আঘাতে বাংলাদেশী নাবিক নিহত। তার নাম মো: হাদিসুর রহমান। 

♦ “জয় বাংলা”কে জাতীয় স্লোগান করে প্রজ্ঞাপন জারি।

♦ জাতিসংঘে ইউক্রেন প্রশ্নে নিরপেক্ষ অবস্থান বাংলাদেশের।

♦ একদিনে ভিসা প্রদানে সৌদি দূতাবাসের রেকর্ড।

০৪.০৩.২০২২

♦ রুশ ব্যাংক নিষেধাজ্ঞায় পড়ার ফলে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পে অর্থ লেনদেন সাময়িক স্থপিত।

♦ ইউক্রেনে বোমা হামলার শিকার হওয়া বাংলাদেশী জাহাজ ‘এমভি সমৃদ্ধি’।

♦ বায়ুদূষণের কারণে বাংলাদেশের গড় আয়ু কমেছে ২.৯১ বছর।

♦ দেশে প্রথমবারের মত মেকানিক্যাল হার্ট প্রতিস্থাপন করেন ইউনাইটেড হাসপাতালের একদল চিকিৎসক।

০৫.০৩.২০২২

♦ বিশ্বব্যাংকের ‘উইমেন বিজনেস অ্যান্ড দ্য ল ২০২২’ শীর্ষক প্রতিবেদন অনুসারে, নারী-পুরুষ সমতার ক্ষেত্রে বিশ্বের ১৯০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৭৪।

♦ বাংলাদেশ পরিবেশবাদী সংগঠন- ‘বাপা’ (বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন), ‘বেন’ (বাংলাদেশ পরিবেশ নেটওয়ার্ক)।

০৬.০৩.২০২২

♦ বিশ্বের ১৪টি দেশে কাঁচা পাট রপ্তানি করা হয়।

♦ ২৬ মার্চ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মার্ট কার্ড প্রদান করা হবে।

♦ চিনিকলের যন্ত্রাংশ তৈরী ও মেরামতের একমাত্র কারখানা হল রেনউইক যজ্ঞেশ্বর এন্ড কোম্পানি (বিডি) লিমিটেড। যা কুষ্টিয়ার গড়াই নদীর তীরে অবস্থিত।

০৭.০৩.২০২২

♦ আজ জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস।

♦ একুশ শতকে পত্রাকারে লিখিত বাংলা ভাষার প্রথম উপন্যাস ফয়জুল লতিফ চৌধুরীর ‘দুর্দনা খানের চিঠি’

♦ জাতীয় পাট পুরস্কার পেলেন ১১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

♦ দেশের বড় শিল্প কারখানা ২৮৫৬টি, মাঝারি শিল্প ৩১৭৮টি, ক্ষুদ্র শিল্প কারখানা ২৩৩০৬টি এবং অতিক্ষুদ্র শিল্প কারখানা ১৬৭৭০টি।

♦ ৫ দিনের সফরে প্রধানমন্ত্রীর সংযুক্ত আরব-আমিরাত সফর।

০৮.০৩.২০২২

♦ জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) ৩৬তম এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় আঞ্চলিক সম্মেলন (এপিআরসি-৩৬) ০৮-০৩-২২ তারিখে ঢাকায় শুরু হয়। সম্মেলনটি প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ আয়োজন করে।

♦ ২৩ মার্চ জাতীয় চলচিত্র পুরস্কার-২০২০ এর আসর বসবে।

০৯.০৩.২০২২

♦ রোমানিয়া থেকে দেশে ফিরলেন ‘বাংলার সমৃদ্ধি’ এর ২৮ নাবিক।

♦ ঢাকা ও আবুধাবির মধ্যে ৪টি সমঝোতা স্মারক সই।

♦ যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক নারী সাহসিকা পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতি (বেলা) এর প্রধান সৈয়দ রিজওয়ানা হাসান।

১০.০৩.২০২২

♦ আজ (১০ ই মার্চ) জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস।

♦ বাংলাদেশের প্রথম সুপারশপ আগোরাকে কিনে নিচ্ছে শ্রীলঙ্কার সফটলজিক হোল্ডিং পিএলজি লিমিটেড।

১১.০৩.২০২২

♦ FDA এর অনুমোদন পেল SK+F ফার্মাসিউটিক্যালস এর সলিড ম্যানুফ্যাকচারিং ফ্যাসিলিটি।

♦ একাদশ সংসদের ১৭তম অধিবেশন ২৮ মার্চ।

♦ করোনা টিকায় সরকারের খরচ ৪০ হাজার কোটি টাকা।

♦ টিকাদানে বাংলাদেশ বিশ্বে ৮ম।

১২.০৩.২০২২

♦ উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলায় ২২৮টি হিমাগারে আলু সংরক্ষনের ধারণক্ষমতা ১৯ লাখ ৪২ হাজার ২৮ মেট্রিকটন।

♦ যুক্তরাজ্যের পূর্ব লন্ডনের একটি রেলস্টেশনের নাম লেখা হলো বাংলায়। নামটি হলো হোয়াইট চ্যাপেল।

♦ পাতার তৈরি ঝুড়ি ৩২ দেশে রপ্তানি।

♦ ইরানে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন বাংলাদেশের সালেহ আহমাদ তাকরীম।

১৩.০৩.২০২২

♦ নতুন নির্বাচন কমিশনের সংলাপ শুরু আজ।

♦ ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ পর্যন্ত দেশে বিশেষ আমানত স্কিম মোট ৩২৬৭৬ কোটি টাকা।

♦ গারোদের সর্বোচ্চ মুকুট এর নাম “কুতুব”।

১৪.০৩.২০২২

♦ বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং এবং সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত ঈসা বিন ইউসুফ আল দুহাইলান।

♦ মিঠাপানির উৎসে যাচ্ছে ৯০০ মিলিয়ন পয়োবর্জ্য।

♦ প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য দেশে তিন ধরনের বন্ড চালু রয়েছে। যথা: ওয়েজ আর্নার ডেভেলপমেন্ট বন্ড, ইউএস ডলার প্রিমিয়াম বন্ড এবং ইউএস ডলার ইনভেস্টমেন্ট বন্ড।

♦ HSBC ‘Business Excellency Award পেল দেশীয় ৯টি প্রতিষ্ঠান।

♦ দেশে প্রথম ‘টকিং কার’ নিয়ে আসল পিএইচপি গ্রুপ।

♦ আন্তর্জাতিক বীজ ব্যাংকের প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর।

১৫.০৩.২০২২

♦ গত দশ বছরে ঢাকা শহরে জীবনযাত্রার ব্যয় ৯২% বৃদ্ধি পেয়েছে।

♦ ILO এর প্রতিবেদন অনুসারে, ১০ বছরে এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি হারে প্রকৃত নিম্নতম মজুরি কমেছে বাংলাদেশে।

♦ ইউক্রেনে নিহত ‘এমভি বাংলার সমৃদ্ধি’ এর প্রকৌশলী হাদিসুর রহমানের দাফন সম্পন্ন।

♦ আজ নদীকৃত্য দিবস।

♦ সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফয়সাল বিন ফারহান বাংলাদেশে আসছেন আজ।

♦ দেশে মোট মৃত্যুর ৬৭% কারণ অসংক্রামক রোগ।

১৬.০৩.২০২২

♦ নিত্যপণ্য কিনতে ১ কোটি মানুষ পাবেন বিশেষ কার্ড।

♦ স্বাধীনতা পুরস্কার- ২০২২ মনোনীত হয়েছেন ১০ জন ব্যক্তি ও একটি প্রতিষ্ঠান (বাংলাদেশ গম ও ভূট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট।)

♦ UNCTAD এর উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ফাহমিদা খাতুন।

♦ জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চলে অবকাঠামো নির্মাণ শুরু।

২০.০৩.২০২২

♦ সাবেক রাষ্ট্রপতি বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদের ইন্তেকাল।

♦ উৎপাদনে যাচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পটুয়াখালি।

♦ সুখী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ ১৪৬ টি দেশের মধ্যে ৯৪তম।

♦ বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে অষ্টম অংশীদারত্ব সংলাপ শুরু।

♦ বিভিন্ন খাতে নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তা দিতে কোহর্ট গঠন।

২১.০৩.২০২২

♦ পল্লীবন্ধু পদক-২০২১ পেয়েছেন ৮ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি। পদক প্রাপ্তরা হলেন, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, কৃষি সাংবাদিকতায় চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ, সংগীতে এন্ড্রু কিশোর (মরণোত্তর), শিক্ষায় BRU এর সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, শিল্পে বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রকৌশলী কামরুল ইসলাম সিদ্দিক (মরণোত্তর), সাহিত্যে কবি ফজল সাহাবুদ্দিন (মরণোত্তর)।

♦ টানা চারবার এশিয়ান হকি ফেডারেশন কাপে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ।

২২.০৩.২০২২

♦ পৃথিবী পৃষ্ঠের শতকরা ৭৫ ভাগই পানি। বেশির ভাগ পানিই (৯৭%) লবণাক্ত। তাই এই পানি সরাসরি বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যায় না।

♦ পৃথিবীতে ব্যবহারের উপযোগী পানি বা মিঠাপানি আছে মাত্র শতকরা ১ ভাগ।

♦ বিশুদ্ধ পানি পুরোপুরি নিরপেক্ষ। বিশুদ্ধ পানির pH হলো ৭।

♦ পানির স্ফুটনাঙ্ক ৯৯.৯৮° সেলসিয়াস।

♦ পানির ঘনত্ব নির্ভর করে তাপমাত্রার ওপর। ৪° সেলসিয়াস তাপমাত্রায় পানির ঘনত্ব সবচেয়ে বেশি।

♦ মানুষের শরীরের শতকরা ৬০ থেকে ৭৫ ভাগ পানি।

♦ উদ্ভিদের দেহের শতকরা ৯০ ভাগ পানি।

♦ পানি একটি উভধর্মী পদার্থ। সাধারণত অ্যাসিডের উপস্থিতিতে পানি ক্ষার হিসেবে আর ক্ষারের উপস্থিতিতে অ্যাসিড হিসেবে কাজ করে।

♦ জলজ প্রাণীদের বেঁচে থাকার জন্য ১ লিটার পানিতে কমপক্ষে ৫ মিলিগ্রাম অক্সিজেন থাকা দরকার।

♦ পানির একটি বিশেষ ধর্ম হলো এটি বেশির ভাগ অজৈব যৌগ আর অনেক জৈব যৌগকে দ্রবীভূত করতে পারে। এ জন্য পানিকে সর্বজনীন দ্রাবকও বলা হয়।

২৩.০৩.২০২২

♦ গতকাল “অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার ১৪২৮” পেয়েছেন লেখক, গবেষক ও প্রাবন্ধিক রঞ্জনা বিশ্বাস। তাঁর সাহিত্যে লোকধর্ম, মুক্তিযুদ্ধে খ্রিস্টান, বেদে সম্প্রদায়ের আত্মত্যাগ ফুটে ওঠে।

♦ আজ শুরু হচ্ছে “জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০২০”

২৪.০৩.২০২২

♦ ঋণমান নির্ণয়কারী সংস্থা ফিচের পূর্বাভাস ২০২২ সালে বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াতে পারে ৩.৫%।

♦ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কা-২০২০ এ আজীবন সম্মাননা পেলেন রাইদুল ইসলাম আসাদ ও আনোয়ারা বেগম।

♦ বাংলাদেশের সাথে স্ক্যান্ডিনেভিীয় ৩টি দেশের (ডেনমার্ক, নরওয়ে ও সুইডেন) কুটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি।

♦ বাংলাদেশ ব্যাংক প্রবাসী ও রপ্তানি আয় বৃদ্ধি পাওয়ায় টাকার মান কমে প্রতি ডলারের দাম ৮৬.২০ টাকা।

২৫.০৩.২০২২

♦ আজ জাতীয় গণহত্যা দিবস।

♦ পাহাড়ী নারীদের কর্মসংস্থানের জন্য প্রতিষ্ঠিত অনলাইন নেটওয়ার্ক ‘সাবাংগী’।

♦ বসতবাড়িতে রান্নার গ্যাসের মূল্য ২০% বাড়ানোর সুপারিশ।

♦ কূটনৈতিক কোরের ডিনের নেতৃত্বে ৪০ দেশের রাষ্ট্রদূত ও প্রতিনিধিগণ কর্তৃক বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফুলেল শ্রদ্ধা।

২৯.০৩.২০২২

♦ মুজিবনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় সুপারিশ, এটি বাস্তবায়িত হলে এটা হবে দেশের ৫৩তম বিশ্ববিদ্যালয়।

♦ ব্যাংক ব্যাতীত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সুদহার ৮% এবং ঋণহার হচ্ছে ১২ হচ্ছে।

 

আলোচিত বাংলাদেশ

দিলারা হাশেম (২১ আগস্ট ১৯৩৬-২০ মার্চ ২০২২) এর বর্ণীল জীবন অবসান

কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক। তিনি যশোরে জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রথম উপন্যাস ‘ঘর মন জানালা’ ১৯৬৫ সালে প্রকাশিত হয় এবং ১৯৭৩ সালে চলচ্চিত্রে রূপায়িত হয়। ১৯৭৬ সাল থেকে তিনি ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগে কাজ করে ২০১১ সালে অবসর নেন।

স্বাধীনতা পুরস্কার ২০২২

১৯৭৭ সাল থেকে প্রতিবছর স্বাধীনতা পুরস্কার দেয়া হয়।
জাতীয় পর্যায়ে গৌরবোজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ৯ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি ও ২টি প্রতিষ্ঠান ২০২২ সালের ‘স্বাধীনতা পুরস্কার’ লাভ করে। বিজয়ীরা হলেন—

পুরস্কার

ব্যক্তি/ প্রতিষ্ঠান

স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ

বীর মুক্তিযোদ্ধা ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী, শহীদ কর্নেল খন্দকার নাজমুল হুদা (বীর বিক্রম), আব্দুল জলিল, সিরাজ উদ্দীন আহমেদ, মোহাম্মদ ছহিউদ্দিন বিশ্বাস (মরণোত্তর), সিরাজুল হক (মরণোত্তর)।

চিকিৎসাবিদ্যা

অধ্যাপক ডাঃ কনক কান্তি বড়ুয়া, অধ্যাপক ডা. মো. কামরুল ইসলাম।

স্থাপত্য

স্থপতি সৈয়দ মাইনুল হোসেন (মরণোত্তর)।

গবেষণা ও প্রশিক্ষণ

বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট।

বিদ্যুৎ

বিদ্যুৎ বিভাগ

এছাড়া বিদ্যুতায়নের মাধ্যমে দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে অবদান এবং মুজিববর্ষে শতভাগ বিদ্যুতায়ন সফলভাবে সম্পন্ন করার করায় বিদ্যুৎ বিভাগও স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ করেন।

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যত চলচ্চিত্র

চলচ্চিত্র

পরিচালক

বঙ্গবন্ধুর চরিত্রে অভিনয়

মুজিব: একটি জাতির রূপকার

শ্যাম বেনেগাল

আরিফিন শুভ

চিরঞ্জীব মুজিব

নজরুল ইসলাম

আহমেদ রুবেল

মুজিব আমার পিতা

সোহেল রানা

৫৭০

আশরাফ শিশির

টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই

সেলিম খান

শান্ত খান

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি

এখলাস আবেদিন

ফেরদৌস

টুঙ্গিপাড়ার দুঃসাহসী খোকা

মুশফিকুর রহমানগুলজার

সৌম্য জ্যোতি

 

বাংলাদেশ মহীসোপানের হালনাগাদ তথ্য উত্থাপন করেছে জাতিসংঘে

বঙ্গোপসাগরের মহীসোপান সীমা সংক্রান্ত হালনাগাদ তথ্য জাতিসংঘে উত্থাপন করেছে বাংলাদেশ। ২ মার্চ ২০২২ নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ২১ সদস্যের Commission on the Limits of the Continental Shelf ( CLCS) এর ৫৪তম অধিবেশনে মহীসোপান সীমা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য পেশ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন। ২২ অক্টোবর ২০২০ CLCS-এ আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের মহীসোপানের সংশোধিত তথ্য দাখিলের পর এ সংক্রান্ত হালনাগাদ তথ্যাদি উপস্থাপন করা হলো। এ উপস্থাপনার মাধ্যমে বাংলাদেশ বঙ্গোপসাগরে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানে তার অধিকার রক্ষা ও ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তিগত তথ্য সরবরাহ করেছে। এরপর CLCS’র নিয়ম অনুযায়ী, এ উদ্দেশ্যে গঠিত একটি সাব-কমিশন বাংলাদেশের উপস্থাপিত দলিলাদি পরীক্ষা করে বাংলাদেশের মালিকানার বিষয়ে সুপারিশ প্রদান করবে। এর ফলে বাংলাদেশ ঐ এলাকায় প্রাকৃতিক সম্পদ অনুসন্ধান শুরু করতে পারবে। বাংলাদেশের মহীসোপান সীমানাসংক্রান্ত দলিলাদি ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে প্রথমবারের মতো CLCS এ জমা দেওয়া হয়। তবে মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে অমীমাংসিত সমুদ্রসীমাজনিত বিরোধের কারণে কমিশন বাংলাদেশের দাখিল করা দলিলাদি সে সময় পরীক্ষা করতে পারেনি। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক বিচারিক সংস্থার মাধ্যমে মিয়ানমার ও ভারতের সাথে সমুদ্রসীমা বিরোধের সমাধান করে।

পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র

২১ মার্চ ২০২২ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বাধুনিক প্রযুক্তির পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র উদ্বোধন করেন। পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি দেশে উৎপাদনে আসা বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড়। পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৬৬০ মেগাওয়াট ক্ষমতার প্রথম ইউনিট বাণিজ্যিক উৎপাদনে আসে ১৫ মে ২০২০ আর দ্বিতীয় ইউনিট বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করে ৮ ডিসেম্বর ২০২০। তবে করোনার মহামারি পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময় পাওয়ার অপেক্ষায় এত দিন কেন্দ্রটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়নি।
সেগুলো হলো ২,৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, ১,৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বাগেরহাটের রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র ও কক্সবাজারের মাতারবাড়ীর (১,২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র।
বর্তমানের বাংলাদেশের বৃহত্তম বিদ্যুৎ কেন্দ্র। প্রতিদিন উৎপাদনের সক্ষমতা ১৩২০ মেগাওয়াট। দেশের দ্বিতীয় কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র (প্রথম বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র) । কেন্দ্র নির্মাণের সিংহভাগ অর্থায়ন করেছে চীন। নির্মিত ১,০০০ একর জমির উপর। পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে গোপালগঞ্জ পর্যন্ত, আমিনবাজার-মাওয়া-গোপালগঞ্জ মোংলা পর্যন্ত সঞ্চালন লাইন তৈরি করা হয়েছে। বর্তমানে ইন্দোনেশিয়া থেকে বঙ্গোপসাগরের রামনাবাদ চ্যানেল হয়ে কয়লা আসে। পরিবেশ রক্ষায় যে বিশেষ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে কয়লাভিত্তিক প্রকল্প বা প্ল্যান্টের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে। আনা হয়, তাকে বলা হয় আলট্রা সুপার ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তি। বিশ্বের ১৩তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে এ ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করে।

ই-সিম চালু করলো গ্রামীণফোন

গ্রামীণফোন দেশে প্রথমবারের মতো ই-সিম (embedded-SIM) চালু করে। ৭ মার্চ ২০২২ থেকে ই-সিম দেশের বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। গ্রামীণফোনের গ্রাহকেরা ই-সিম সমর্থন করে এমন ডিভাইসে প্লাস্টিক সিম কার্ড ছাড়াই কানেকটিভিটির সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। বহু নেটওয়ার্ক ও নম্বর একটি ই-সিমে সংযুক্ত করা যাবে। তবে এটি নির্ভর করবে মুঠোফোনের ওপর। নতুন ই সিম সংযোগ পেতে হলে গ্রাহকদের ই-সিম সমর্থন করে এমন ডিভাইস থাকতে হবে। বিশ্বজুড়েই ডিজিটাল রূপান্তরসহ পরিবেশগত সুবিধা দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে ই-সিম।
ই-সিম কী? সিম কার্ড ছাড়াই মোবাইল নেটওয়ার্ক ব্যবহারের ডিজিটাল পদ্ধতি।
সুবিধাঃ নিরাপদ, সহজ, পরিবেশবান্ধব।

শতভাগ বিদ্যুতায়িত বাংলাদেশ

বিদ্যুতের উজ্জ্বল আলোয় আলোকিত পুরো দেশ। দেশের আনাচে-কানাচে ভেসে যাবে লাল-নীল আলোর ঝর্ণাধারায়। দুর্গম পাহাড় থেকে শুরু করে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ অঞ্চলে পৌঁছবে আলোর ছোঁয়া। শতভাগ বিদ্যুতায়িত দেশের কাতারে বাংলাদেশ। স্বাধীনতার পর ২০০৯ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের জনগোষ্ঠীর ৪৭% বিদ্যুতের আওতায় ছিল। এরপর গত এক যুগে বাকি ৫৩% মানুষ বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় আসে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষে সবার ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছানোর কর্মসূচি নেওয়া হয়। ২০১৬ সালে ‘শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ শীর্ষক কর্মসূচি শুরু হয়। ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যেই শতভাগ বিদ্যুতায়ন নিশ্চিত করা হয়। ২১ মার্চ ২০২২ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শতভাগ বিদ্যুতায়নের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন। দেশে বর্তমানে ৪ কোটি ২১ লাখের বেশি বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে, যার আওতায় শতভাগ জনগণ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে। এক যুগ আগে বিদ্যুৎ গ্রাহকসংখ্যা ছিল ১ কোটি ৮ লাখ। এই মধ্যবর্তী সময়ে ২ কোটি ১৩ লাখ বিদ্যুৎসংযোগ বেড়েছে। বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংখ্যা ২৭টি থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪৮টিতে। দেশের যেসব স্থানে গ্রিডের বিদ্যুৎ সরাসরি পৌছানো যায়নি সেখানে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে সংযোগ এবং সোলার মিনিগ্রিডের মাধ্যমে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। বিপুলসংখ্যক জনগণকে সংযুক্ত করার পর এখন টেকসই, নিরবচ্ছিন্ন এবং সাশ্রয়ী বিদ্যুৎসেবা নিশ্চিত করা হবে সরকারের আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ।

রপ্তানি নীতি ২০২১-২৪

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২ মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘রপ্তানি নীতি ২০২১-২০২৪’ এর খসড়ার অনুমোদন দেওয়া হয়। চাহিদা ও বিশ্ব বাণিজ্য পরিস্থিতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে তিন বছর পর পর রপ্তানি নীতি পরিবর্তন করা হয়।
সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত খাত: সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত খাত বলতে সে সকল খাতকে বোঝায় যেখানে রপ্তানির বিশেষ সম্ভাবনা রয়েছে। অথচ বিবিধ কারণে এ সম্ভাবনাকে তেমন কাজে লাগানো যায়নি, তবে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিলে অধিকতর সাফল্য অর্জন করা সম্ভব। যথা— অধিকমূল্য সংযোজিত তৈরি পোশাক, ডেনিম। কৃত্রিম ফাইবার । গার্মেন্টস এক্সেসরিজ। ফার্মাসিউটিক্যাল পণ্য। প্লাস্টিক পণ্য। জুতা এবং চামড়াজাত পণ্য। পাটজাত পণ্য। কৃষি পণ্য ও প্রক্রিয়াজাত কৃষি পণ্য। লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য। জাহাজ ও সমুদ্রগামী ফিশিং ট্রলার নির্মাণ। ফার্নিচার হোম টেক্সটাইল ও হোম ডেকর, টেরিটাওয়েল। লাগেজ। একটিভ ফার্মাসিউটিক্যাল ইনগ্রেডিয়েন্টস (API) এবং ল্যাবরেটরি বিকারক।
বিশেষ উন্নয়নমূলক খাত: যে সকল পণ্যের রপ্তানি সম্ভাবনা রয়েছে অথচ পণ্যগুলোর উৎপাদন, সরবরাহ এবং রপ্তানি ভিত্তি সুসংহত নয় সে সকল পণ্যের রপ্তানি ভিত্তি লক্ষ্যে বিশেষ খাতের অন্তর্ভুক্ত করা হবে। যথা— ইলেকট্রিক ও ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য । পণ্য। মূল্য সংযোজিত হিমায়িত মৎস্য। প্রিন্টিং এ্যান্ড প্যাকেজিং। কাটিং ও পোলিশকৃত মসৃন হীরা ও জুয়েলারি। পেপার ও পেপার প্রোডাক্টস। রাবার ও রাবারজাত পণ্য। রেশম সামগ্রী । হস্ত ও কারু পণ্য। লুঙ্গিসহ তাঁত শিল্পজাত পণ্য। ফটোভলটিক মডিউল (সোলার এনার্জি)। কাজুবাদাম। জীবন্ত ও প্রক্রিয়াজাত কাঁকড়া। খেলনা। আগর। হালাল ফ্যাশন (আবায়া ইত্যাদি, বোরকা, হিজাব)। হালাল মাংস ও মাংসজাত পণ্য এবং অন্যান্য হালাল পণ্য I রিসাইকেন্ড পণ্য। সফটওয়্যার ও আইটি এনাবল সার্ভিসেস,
আইসিটি পণ্য: BPO, Freelancing
বিশেষ উন্নয়নমূলক সেবা খাত: পর্যটন শিল্প। আর্কিটেকচার ইঞ্জিনিয়ারিং ও কনসালটেন্সি সার্ভিসেস।

পোশাক রপ্তানিতে দ্বিতীয়

তৈরি পোশাকের বিশ্ববাণিজ্যে অনেক দিন ধরেই তীব্র প্রতিযোগিতা চলছে বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের মধ্যে। চীনের পরের অবস্থান অর্থাৎ দ্বিতীয় প্রধান রপ্তানিকারক দেশের মর্যাদা পেতেই এ লড়াই । এ প্রতিযোগিতায় ভিয়েতনামকে আবারও ছাড়িয়ে গেল বাংলাদেশ। ২০২১ সাল শেষে ভিয়েতনামের চেয়ে বাংলাদেশের রপ্তানির পরিমাণ ৪৭২ কোটি ডলার বেশি। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (WTO) পরবর্তী প্রতিবেদনে দ্বিতীয় অবস্থানের এ স্বীকৃতি পাওয়া যাবে। সদস্য দেশগুলোর রপ্তানি বাণিজ্যের বিশ্লেষণ নিয়ে প্রতিবছর জুনে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করে থাকে সংস্থাটি । বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (EPB) এবং ভিয়েতনামের ট্রেড প্রমোশন কাউন্সিলের (Vietrade) পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০২১ সালে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানির পরিমাণ ছিল ৩,৫৮০ কোটি ডলার। অন্যদিকে, একই বছর ভিয়েতনামের রপ্তানির মোট পরিমাণ ৩,১০৮ কোটি ডলার। রপ্তানি বাণিজ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে বন্দর। ভিয়েতনামের আন্তর্জাতিক বন্দর আছে ১৬৩টি। বাংলাদেশের মাত্র তিনটি। অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক মিলিয়ে ভিয়েতনামের বন্দরের সংখ্যা ৩২০টি। অন্যদিকে বাংলাদেশের ৭০টি।

নতুন আইনে প্রথম নির্বাচন কমিশন

স্বাধীনতার পর প্রথম আইন
স্বাধীনতার পর প্রথমবারের মতো ২৭ জানুয়ারি ২০২২ জাতীয় সংসদে ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল, ২০২২’ পাস হয়। ২৯ জানুয়ারি ২০২২ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বিলটিতে সম্মতি দিলে এটি আইনে পরিণত হয়। আইনের উল্লেখযোগ্য বিষয়-

অনুসন্ধান কমিটি

• সিইসি ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগের জন্য প্রতিটি পদের বিপরীতে দু’জনের নাম প্রস্তাব করার জন্য একটি অনুসন্ধান কমিটি গঠন করবেন রাষ্ট্রপতি।

• অনুসন্ধান কমিটির সভাপতি হবেন প্রধান বিচারপতি মনোনীত আপিল বিভাগের একজন বিচারপতি। সদস্য হিসেবে থাকবেন প্রধান বিচারপতির মনোনীত হাইকোর্টের একজন বিচারপতি, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, সরকারি কর্ম কমিশনের চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রপতির মনোনীত দু’জন বিশিষ্ট নাগরিক (তাদের একজন হবেন নারী)।

• তিনজন সদস্যের উপস্থিতিতে অনুসন্ধান কমিটির সভার কোরাম হবে।

• সভায় উপস্থিত সদস্যদের সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ভোটের সমতার ক্ষেত্রে সভায় সভাপতিত্বকারী সদস্যের নির্ণায়ক ভোট প্রদানের ক্ষমতা থাকবে। 

• মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ অনুসন্ধান কমিটিকে প্রয়োজনীয় সাচিবিক সহায়তা দেবে। 

• রাজনৈতিক দল এবং পেশাজীবী সংগঠনগুলোর কাছ থেকে নাম আহ্বান করতে পারবে অনুসন্ধান কমিটি। 

• অনুসন্ধান কমিটি ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে তাদের সুপারিশ রাষ্ট্রপতির কাছে পেশ করবে।

সিইসি ও নির্বাচন কমিশনারের যোগ্যতা

• বাংলাদেশের নাগরিক।
• ন্যূনতম বয়স ৫০ বছর
•গুরুত্বপূর্ণ সরকারি, বিচার বিভাগীয় আধা সরকারি, বেসরকারি ব স্বায়ক্তশাসিত পদে বা পেশায় কমপক্ষে ২০ বছর কাজের অভিজ্ঞতা।

অযোগ্যতা

• কোনো উপযুক্ত আদালত অপ্ৰকৃতিস্থ ঘোষিত করলে।
• দেউলিয়া ঘোষিত হওয়ার পর দায় থেকে অব্যাহতি লাভ না করে থাকলে।
• কোনো বিদেশি রাষ্ট্রের নাগরিকত্ব থাকা বা আনুগত্য প্রকাশ করা।
• নৈতিক স্খলনজনিত কোনো ফৌজদারি অপরাধে কারাদণ্ডে দণ্ডিত হওয়া।
• ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইমস (ট্রাইবুনালস) অ্যাক্ট ১৯৭৩ বা বাংলাদেশ কোলাবরেটরস (স্পেশাল) ট্রাইব্যুনাল অর্ডার ১৯৭২-এর অধীনে কোনে অপরাধের জন্য দণ্ডিত হওয়া।
• প্রজাতন্ত্রের কোনো লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত থাকা।

Leave a Reply